এক স্বামীকে ফিরে পেতে দুই বধূর যুদ্ধ

0
8
এক স্বামীকে ফিরে পেতে দুই বধূর যুদ্ধ

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায় এক স্বামীকে ফিরে পেতে দুই বধূর তুমুল যুদ্ধ শুরু হয়েছে। স্বাক্ষ্য প্রমাণ নিয়ে মানুষের দ্বারেদ্বারে দৌড়ঝাঁপ করছে দুই বধূ।স্বামী মামুন মোল্লা উপজেলার যদুবয়রা ইউনিয়নের কেশবপুর গ্রামের আব্দুল মোল্লার ছেলে। তার প্রথম বধূর নাম সুমি খাতুন এবং দ্বিতীয় বধূ খোলা তালাক প্রাপ্ত মুক্তা খাতুন।সে নন্দনালপুর ইউনিয়নের এলঙ্গীপাড়া আবাসনের ইউনুস আলীর মেয়ে।

জানা গেছে, ২০১৬ সালে মানুনের সাথে সুমির পারিবারিকভাবে বিবাহ সম্পন্ন হয়।বিয়ের দুইবছর পরে মুক্তার সাথে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে পালিয়ে গিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করে মামুন।দ্বিতীয় সংসারে মামুন ও মুক্তা সুখী ছিলনা।নিয়মিত পারিবারিক কলহ চলে আসছিল।অপরদিকে প্রথম স্ত্রী সুমি ও মামুনের পরিবারের লোকজন নিয়মিত খোঁজাখুজি করে আসছিল ওদের। এক পর্যায়ে মামুনের সাথে যোগাযোগ হয় সুমি ও তার পরিবারের এবং প্রায় এক বছর আগে মামুন ও মুক্তার খোলা তালাক হয়।এরপর থেকেই মামুন প্রথম স্ত্রী সুমির সাথেই আছে।কিন্তু হঠাৎ তালাক প্রাপ্ত দ্বিতীয় স্ত্রী মুক্তা দাবি করছেন মামুন তালাকের পরেও আমার সাথে ছিল এবং আমি পাঁচ মাসের অন্তঃস্বত্তা। অপরদিকে মামুন মোল্লা নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে ডিএনএ টেস্টের কথা বলেছেন।

এবিষয়ে মামুনের প্রথম স্ত্রী সুমি খাতুন বলেন, ৮ মাস পূর্বে তার স্বামী আবাসনের মুক্তা খাতুনকে নিয়ে উধাও হয়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর তাদের সন্ধান পাওয়া যায় ঢাকায় । এসময় আমার এবং মামুনের পরিবারের কয়েকজন ঢাকাতে গিয়ে জানতে পারি ইতিমধ্যে মুক্তা ও মামুনের দাম্পত্য জীবন বিষাক্ত হয়ে উঠেছ এবং উভয় পরিবারের সিদ্ধান্তঃ মোতাবেক দেনমোহর ও খোরপোষের সমস্ত টাকা বুঝিয়ে দিয়ে ঢাকা থেকেই নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে খোলা তালাক হয়। তিনি আরো বলেন, হটাৎ করেই মুক্তা আবার দাবী করছে সে অন্তঃসত্ত্বা এবং তার পেটে মামুনের বাচ্চা। এরআগেও যখন মামুনের সাথে সে ঢাকা চলে যায় সেসময় একই দাবী করেছিলো সে কিন্তু টেস্ট করে মিথ্যা প্রমাণিত হয়।

মামুন বলেন, তালাকের পর মুক্তার সাথে কোন সম্পর্ক নেই। মুক্তা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন নাম্বার দিয়ে আমাকে ফোন দেয় এবং আমি কন্ঠ শোনার সাথে সাথে ফোন কেটে দিই। মুক্তার পেটে তার বাচ্চার বিষয়ে মামুন বলেন, ডিএনএ টেস্ট করিয়ে দেখেন আমি অপরাধী হলে যেকোন শাস্তি মাথা পেতে নিবো।

এবিষয়ে মুক্তা বলেন, এক বছর পূর্বে আমাদের তালাক হলেও মামুন আমার কাছেই থাকত। আমার পেটে মামুনেরই বাচ্চা। ডিএনএ টেস্ট করালে প্রকৃত সত্য বেরিয়ে আসবে এমন প্রশ্নের উত্তরে সে বিচলিত হয়ে পরে এবং বলেন ব্লাস্ট এ অভিযোগ দেয়া হয়েছে তারা যে বিচার করবে সেটা মেনে নিবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here