গনতন্ত্রের বিজয় দিবস উপলক্ষে কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের আলোচনা সভা

0
10
গনতন্ত্রের বিজয় দিবস উপলক্ষে কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের আলোচনা সভা


কুষ্টিয়া প্রতিনিধি:
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিজয়ের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি ৩০ ডিসেম্বর। এ উপলক্ষে কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে সকালে জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ের সভাকক্ষে ‘গণতন্ত্রের বিজয় দিবস’ উদযাপন উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব সদর উদ্দিন খান।

প্রধান বক্তা ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আজগর আলী। আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহিদ হোসেন জাফর, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক বাবু স্বপন কুমার ঘোষ, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আতাউর রহমান আতা, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আক্তারুজ্জামান বিশ্বাস ও সাধারন সম্পাদক রেজাউল হক। এছাড়াও জেলা ছাত্রলীগের নবাগত কমিটির সভাপতি শেখ হাফিজ চ্যালেঞ্জ ও সাধারন সম্পাদক আতিকুর রহমান অনিক সহ দলীয় অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। গণতন্ত্রের বিজয় দিবস উদযাপনে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের নেতৃত্বে বিজয় র‌্যালীতে ছাত্রলীগের বিভিন্ন ত্যাগী কর্মী অংশ গ্রহন করেন। বিজয় র‌্যালীটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা আওয়ামীলীগের আলোচনা সভায় সকলে উপস্থিত হয়।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের জনগণ মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পক্ষে ব্যালটের মাধ্যমে আওয়ামীলীগের পক্ষে নৌকা প্রতীকে গণরায় প্রদান করে। স্বাধীনতাবিরোধী-যুদ্ধাপরাধী, ১৫ আগস্ট, জেলহত্যা ও ২১ আগস্টের খুনি এবং সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে সরাসরি প্রত্যাখ্যান করে দেশের জনগণ। বক্তারা আরো বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও উন্নয়নের ইতিহাসে একটি বিজয়ের মাইলফলক। এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে অশুভ শক্তি, দুর্নীতি-সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের পৃষ্ঠপোষকদের আস্ফালন আর সহিংস রাজনীতির অন্ধকার ছায়া কাটিয়ে গণতন্ত্রের নবতর অভিযাত্রায় অগ্রসর হয় বাংলাদেশ। এ কারণে ৩০ ডিসেম্বর ‘গণতন্ত্রের বিজয় দিবস’ উপলক্ষে আমরা স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনে আজকের এই আলোচনা সভার আয়োজন করেছি।

বক্তারা উল্লেখ করে বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এ দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা ও সুরক্ষা এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাভিত্তিক গণতান্ত্রিক মূল্যবোধে উদ্ভাসিত সমাজ বিনির্মাণ করতে বদ্ধপরিকর। আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে বাংলাদেশ যখন ধারাবাহিক অগ্রগতির মধ্য দিয়ে কাঙ্খিত অভিষ্ঠে এগিয়ে চলেছে, তখনই একাত্তরের পরাজিত অপশক্তি বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা ও গণতান্ত্রিক অভিযাত্রাকে ব্যাহত করার নানামুখী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। বিএনপি তাদের চিরাচরিত ষড়যন্ত্রের রাজনীতির ধারাবাহিকতায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে এবং জনগণের মধ্যে নির্বাচন নিয়ে নেতিবাচক প্রচারণা ও নির্বাচন কেন্দ্রিক উৎসব-আমেজে স্থবিরতা সৃষ্টি করতে অপতৎরপতা চালায়। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে এবং পরে গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা বিনষ্টে সারাদেশে বিএনপি-জামায়াত অশুভ জোট আগুন সন্ত্রাস চালায় ও নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। বিএনপি-জামায়াতের আগুন সন্ত্রাসে শত শত সাধারণ মানুষ নিহত হয়। আগুন সন্ত্রাসে দগ্ধ হয়ে এখনও অসংখ্য মানুষ দুর্বিষহ যন্ত্রণা ভোগ করছে। জনগন আওয়ামীলীগকে ভোট দিয়ে বিএনপিকে সঠিক সময়ে দাতভাঙা জবাব দিয়েছেলো। আগামী ১৬ই জানুয়ারী ২য় ধাপে পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ২য় ধাপের আওত্তায় কুষ্টিয়া পৌরসভা রয়েছে আবারো নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে বিজয় ছিনিয়ে আনতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here