গুরুদাসপুরে বিয়ের দাবিতে যুবকের বাড়িতে তরুণীর অনশন

0
19
গুরুদাসপুরে বিয়ের দাবিতে যুবকের বাড়িতে তরুণীর অনশন

রাশিদুল ইসলাম, নাটোর প্রতিনিধিঃ নাটোরের গুরুদাসপুরে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে দুদিন ধরে অনশন করছে এক কলেজ ছাত্রী(১৯)।

প্রতারক প্রেমিক পলাতক থাকায় তাঁর স্বজনরা ওই ছাত্রীকে শারিরিক নির্যাতন করে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

দুদিন ধরে অনশনে থাকায় অসুস্থ্য হয়ে পরলে স্থানীয়রা ওই ছাত্রীকে গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে। বিয়ে না করলে আত্মহত্যার হুমকি দিয়েছেন ওই তরুনী।

ভুক্তোভুগি ওই তরুনী ও স্হানীয় এলাকাবাসীসূত্রে জানাযায় ,গত শুক্রবার প্রতারক প্রেমিক তারেক হাসানের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অবস্থান নেন পার্শ্ববতি গজেন্দ্র চাপিলা গ্রামের অনার্স প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। কিন্তু প্রতারক তারেক পলাতক থাকায় তার স্বজনরা ওই শিক্ষার্থীকে শারিরিক নির্যাতন করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। অসুস্থ্য ওই অনার্স পড়ুয়া শিক্ষার্থী দুদিন ধরে অনশনে থেকে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে স্থানীয়রা তাঁকে গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। তারেক হাসান রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্ন্তভূক্ত তথ্য বিজ্ঞান বিভাগের ডিপ্লোমা শিক্ষার্থী।

ভুক্তভুগি কলেজ ছাত্রী জানান, উপজেলার চাপিলা ইউনিয়নের মহারাজপুর গ্রামের(মুক্তবাজার) কাচু মন্ডলের ছেলে তারেক হাসানের সাথে মুঠোফোনে তাঁর এক বছর আগে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ছাত্রীর বাসার পাশে প্রতারক তারেকের মাছ চাষের পুকুর থাকায় প্রায়শই নিভৃতে দুজন দেখা করতো। বিয়ের প্রলোভনে একাধিক বার তারেক তার সাথে অবৈধ শারিরিক সম্পর্ক করে। ঘটনার দিন বিয়ের আশ্বাসে বাসায় আসার কথা বলে তাঁকে রেখে কৌশলে তারেক পালিয়ে যায়। প্রেমিক বিয়ে না করলে আত্মহত্যার কথাও জানায় ওই শিক্ষার্থী।

প্রতারক তারেকের মুঠোফোন রিসিভ না হলে তাঁর পিতা কাচু মন্ডল শারিরিক নির্যাতনের বিষয়টি অস্বিকার করে জানান,ছেলে বাসায় আসলে বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করে নেয়া হবে।

গুরুদাসপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক শারমিন জাহান জানান,মেয়েটি মহিলা ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছে। তাঁর শারিরিক দুর্বলতা ও শরীরের দু’এক জায়গায় সামান্য আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

এ ব্যাপারে গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)আব্দুর রাজ্জাক জানান,মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here