চট্টলার রাজনীতির মাঠে আবার জেগে উঠেছে উত্তরজেলা ছাত্রদল

0
5
চট্টলার রাজনীতির মাঠে আবার জেগে উঠেছে উত্তরজেলা ছাত্রদল

এম. মতিন, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি :  স্বৈরাচারী এরশাদ বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলনে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ভূমিকা ছিল গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে ১৯৯৮ সাল থেকে ২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনের আগে তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকারের পতন আন্দোলনে ছাত্রদল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। এরপর ২০০১ সালের ১ অক্টোবরে অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে বিএনপি সরকার গঠন করার পর থেকেই ক্ষমতার স্বাদ পেয়ে বসে বিএনপির ছাত্রসংগঠন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলকে। তখন রাজপথ থেকে শুরু করে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো নিজেদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। কিন্তু ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পরই ক্রমান্বয়ে পর্দার আড়ালে যেতে শুরু করে ছাত্রদল। ২০১৩ সাল পর্যন্ত হাতে গনা কয়েকটি বড় সমাবেশে তাদের উপস্থিতি দেখা গেলেও হরতাল-অবরোধ বা কোনো প্রতিবাদ কর্মসূচিতে মাঠে নামতে দেখা যায়নি। আবার ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বরের মার্চ ফর ডেমোক্রেসিতে খালেদা জিয়াকে বালুর ট্রাক দিয়ে আটকে রাখা ও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনের আগে ও পরবর্তী আন্দোলন ঘিরে চট্টগ্রামের রাজপথে ছাত্রদল নামলেও পরবর্তীতে দ্বন্দ্ব, কোন্দলে জড়িয়ে অনেকটা ঝিমিয়ে পড়ে। ছাত্র সমাজের কোনো দাবি নিয়ে কিংবা দলীয় কর্মসূচিগুলোতে চট্টগ্রামে ছাত্রদলের তৎপরতা ছিল নগণ্য। ছাত্রদলের এমন নিষ্ক্রিয়তা নিয়ে চট্টগ্রামে জাতীয়তাবাদীর রাজনৈতিক অঙ্গন শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনা। 

এরইমধ্যে ২০১৬ সালের ২৩ অক্টোবর জাহেদুল আফছার জুয়েলকে সভাপতি, আনছুর উদ্দিন আনছুর সিঃ সহসভাপতি ও মনিরুল আলম জনিকে সাঃ সম্পাদক করে ২২ সদস্য বিশিষ্ট চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল। কথা ছিলো নতুন এই কমিটি সমঝোতার ভিত্তিতে চট্টগ্রাম উত্তর জেলার আওতাধীন বিভিন্ন  থানা, পৌরসভা ও কলেজ কমিটি গুলো এক মাসের মধ্যে গঠন করবে। কিন্তু মতবিরোধের কারণে দীর্ঘ সাড়ে ৩ বছরেও উপজেলা, কলেজ এবং পৌরসভার কোন কমিটিই গঠিত হয়নি। তা নিয়ে দলের উজ্জীবিত তৎপরতা ঝিমিয়ে পড়ে। বর্তমানে ঝিমিয়ে পড়া ছাত্রদলকে ঘুরে দাঁড়ানোর লক্ষ্যে করোনার মধ্যেও নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে কেএসএম মুসাব্বির সাফির নের্তৃত্বে এবিএম মাহমুদ আলম সরদার, মাইন উদ্দিন নিলয়, ফারুক আহমেদ সাব্বিরকে নিয়ে গঠিত টিম। 

সম্প্রতি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে চট্টগ্রাম বিভাগীয় এ সাংগঠনিক টিমের তত্ত্বাবধানে চলতি বছর চট্টগ্রাম উত্তরজেলার রাঙ্গুনিয়া, হাটহাজারী ও মিরসরাই উপজেলা এবং উক্ত উপজেলাগুলোর কলেজ ও পৌরসভার আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দেন কেন্দ্রীয় ছাত্রদল। 

এদিকে দীর্ঘ বছর পরে চট্টগ্রাম উত্তরজেলার বিভিন্ন উপজেলায় ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা করায় চট্টগ্রামের মাঠপর্যায়ে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে বিগত সময়ে সরকারবিরোধী আন্দোলন করতে গিয়ে বিভিন্ন হামলা, মামলায় জর্জরিত ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্যভাব লক্ষ্যনীয়। নতুন কমিটি পেয়ে চট্টগ্রামে দীর্ঘদিন যাবত ঝিমিয়ে পড়া চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রদল আবারো জাগ্রত হয়। ছাত্রদলের এমন সাংগঠনিক তৎপরতা নিয়ে চট্টগ্রামের ছাত্র রাজনীতিতে শুরু হচ্ছে নতুন হিসাব-নিকাশ। 

অন্যদিকে তিনটি উপজেলার কমিটি ঘোষণার পর পরই সক্রিয় হয়েছে উত্তরজেলার আওতাধীন অন্যান্য থানা, উপজেলা, পৌরসভা ও কলেজ ছাত্রদলের নেতারা। চট্টগ্রামে বিএনপির দলীয় অফিসে ছাত্রদলের আনাগোনা বেড়েছে। কেন্দ্রীয় কর্মসূচি পালন করার উদ্দেশ্যে রাজপথে জমায়েত হতে দেখা গেছে তাদের। এককথায় নতুন কমিটি পেয়ে উদ্দীপ্ত নেতারা এখন রাজপথ পুরোদমে সক্রিয় হয়ে উঠেছে। অনেকটা ঝিমিয়ে পড়া উত্তরজেলা ছাত্রদল রাজনীতির মাঠে আবার জেগে উঠেছে, ফিরে এসেছে প্রাণচাঞ্চল্যতা।

চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রদলের সিঃ সহসভাপতি আনছুর উদ্দিন বলেন, ‘উত্তরজেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক কার্যক্রম ও বিভিন্ন ইউনিট কমিটি গঠন করতে পরিকল্পনা নির্ধারণ করবেন চট্টগ্রাম বিভাগে দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক টিম ও উত্তরজেলা ছাত্রদলের নেতারা। দ্রুত সময়ের মধ্যে চট্টগ্রাম উত্তরজেলার আওতাধীন বিভিন্ন উপজেলা, পৌরসভা ও কলেজের সকল ইউনিটের কমিটি গঠন করা হবে। আর এতেই চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রদল ফিরে পাবে অতীতের ন্যায় প্রাণচাঞ্চল্যতা। আবারও জেগে উঠবে চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রদল।’ আন্দোলন সংগ্রামে ছাত্রদল পূর্বের ন্যায় শক্তি যোগাবে এমনটি প্রত্যাশা এ ছাত্রদল নেতার।

এনিয়ে চট্টগ্রাম বিএনপির হাইকমান্ডেরা মনে করেন, বিএনপি ও তাদের অঙ্গসংগঠনগুলো যদি দ্বন্দ্ব ও কোন্দল মিটিয়ে সরকার পতন আন্দোলনে মাঠে নামে, তাহলে সরকার দুর্বল হয়ে যাবে। পুলিশ প্রশাসন এখন আর আগের মতো নেই। পুলিশ প্রশাসন এখন ধীরে ধীরে নিউটাল হওয়ার চেষ্টা করছে। বিএনপি জোট একটু শক্ত করে দাঁড়াতে পারলেই পরিস্থিতি পাল্টে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here