জেলা শিল্পকলা একাডেমী কুষ্টিয়ার নতুন নাট্যপ্রযোজনা “আমার সাধ না মিটিলো” মঞ্চস্থ

0
26
জেলা শিল্পকলা একাডেমী কুষ্টিয়ার নতুন নাট্যপ্রযোজনা "আমার সাধ না মিটিলো" মঞ্চস্থ

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: বাংলাদেশের স্থপতি ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকাণ্ডের অজানা অধ্যায়ের গল্প নিয়ে শামীম সাগরের রচনা ও নির্দেশনায় ‍”আমার সাধ না মিটিলো” নাটক মঞ্চস্থ হয়েছে।

শুক্রবার রাতে কুষ্টিয়া ছেউড়িয়া লালন একাডেমীর অডিটোরিয়েমে এ নাটক মঞ্চস্থ হয়। এই নাটকটি জেলা শিল্পকলা একাডেমি কুষ্টিয়ার প্রযোজনা ।নাটকটির সহযোগী নাট্যদল : বোধন থিয়েটার কুষ্টিয়া।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও কুৃষ্টিয়া-৩ আসনের সংষদ সদস্য মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ নাটকের উদ্বোধন করেন।

এসময় তিনি বলেন, আমাদের সাংস্কৃতির অন্যতম একটি মাধ্যম হলো নাটক। সামরিক সরকার বিরোধী আন্দোলনেই এই নাট্যকর্মীরা মঞ্চে ও রাজপথে তাদের উপস্থিতি রেখে সবসময় দেশের রাজনীতিকে প্রভাবিত করেছে। যার ফলে আমাদের গণতন্ত্র সামনের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। সংস্কৃতি কর্মীদের এই প্রয়াস আগামী দিনে আমাদের গণতন্ত্রকে আরও সমৃদ্ধ করবে বলে তিনি মনে করেন।

বঙ্গবন্ধু মানেই দর্শণ, বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, আজ আমরা এগিয়ে চলেছি মুক্তির পানে ও ক্রমাগত উন্নতির পথে। আমাদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মানেই একটি দর্শন, একটি চেতনা। তার দেখানো পথ ধরে, তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের উন্নয়ন অভিযাত্রার নেতৃত্ব দিয়ে আধুনিক দেশ গড়ার দায়িত্ব পালন করছেন।

অনুষ্ঠানে জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারন সম্পাদক মো: আমিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও জেলা কালচারাল অফিসার সুজন রহমানের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া-৪ (খোকসা-কুমারকালী) আসনের সংসদ সদস্য সদস্য ব্যারিষ্টার সেলিমআলতাফ জর্জ, মাহবুব উল আলম হানিফ এমপির সহধর্মীনি ফৌজিয়া আলম, কুষ্টিয়ার স্থানীয় সরকারের উপপরিচালক মৃণাল কান্তি দে, সসদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জোবায়ের হোসেন চৌধুরী, কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাজিবুল ইসলাম খানসহ জেলা শিল্পকলা একাডেমীর নির্বাহী পরিষদের সদস্যরা শিল্পী ও কলাকুশলী উপস্থিত ছিলেন।

নাটকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের চরিত্রে মো: আমিরুল ইসলাম, মান্নাফের চরিত্রে শহিদুর রহমান রবি, মেজর, মহিদতুলের চরিত্রে শাহীন সরকার, মানুষ চরিত্রে আসলাম আলী, ওসি ও কিসিঞ্জার চরিত্রে আনোয়ার বাবু, ক্যাপ্টেনের চরিত্রে শাহেদসহরোয়ার্দী, মোহিতুলের চরিত্রে বিশ্বজিৎ মজুমদার, হাবিলদারের চরিত্রে ফাহিম হাসান, মৌলভী ও জিয়া চরিত্রে সাইমুর রহমান অনিক , রজব মিয়া ও শশাঙ্ক চরিত্রে সৌরভ, এবং গ্রামবাসী ও ফারুকের চরিত্রে ইউসুফ অভিনয় করেন, গ্রামবাসী চরিত্রে আরো অভিনয় করেন সবুজ ও সায়েম। নাটকটির কোরিওগ্রাফি করেন আশরাফুর নাহার দীনু ও আবহ সঙ্গীত করেন আসিফ ফেরদৌস রাহাত।

জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারন সম্পাদক মো: আমিরুল ইসলাম বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগস্টের বাঙালি জাতির কলঙ্কিত অধ্যায়ের প্রেক্ষাপটে রচিত নাটকটি।বাঙালি ও বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে কলঙ্কিত অধ্যায় ১৫ ই আগস্টের পরদিন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লাশ দাফনের ঘটনাকে উপজীব্য করেই এগোতে থাকে নাটকের গল্প।

নাট্যগল্প: সেদিন ছিল ষলোই আগস্ট উনিশশ পঁচাত্তর। অপরাহ্নে টুঙ্গিপাড়ার মাটিতে নেমে এলো একটি হেলিকপ্টার। সেনা পাহারায় হেলিকপ্টার হতে একটি বিশেষত্বহীন কফিনে নিজ বাড়ির উঠানে এলো একটি দেশের স্থপতির প্রাণহীন দেহ। সেনা পাহারায় জানাজা-দাফন-কাফন হয়ে যায়।জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দাফনের এই ঘটনাটা সবারই জানা।কিন্তু, কবির কল্পনায় এই ঘটনাটিই জাদুবাস্তবতাময় হয়ে ওঠে। কফিনের ঢাকনা সরিয়ে সকলে দেখতে পায় তাদের খোকা, তাদের মিঞা ভাইয়ের এই নিথর দেহে অপরাহ্নের আলো এসে এক অপার্থিব পরিবেশের সৃষ্টি করেছে। তাদের সমুখে ঘুম থেকে জেগে ওঠেন শেখ মুজিব। বুকে আঠারোটি গুলি নিয়েও তিনি বর্তমান। তাঁর বিশ্বাস বাংলাদেশ যতদিন থাকবে শেখ মুজিবকে কেউ কখনো মারতে পারবে না। সকলের প্রিয় খোকা কিংবা মিঞা ভাই উপস্থিত সকলের সাথে তার ফেলে আসা টুঙ্গিপাড়ার স্মৃতি নিয়ে আড্ডায় মেতে ওঠেন।অপরাহ্নের আলো বেয়ে উঠানে উপস্থিত হয় এক রহস্যময় মানুষ, বাড়ির উঠানে উপস্থিত সেনা সদস্যদের সাথে শুরু হয় তার তর্ক-বিতর্ক।

মানুষটি কিছু সুত্র ধরিয়ে দেয়, প্রশ্নবাণে বিদ্ধ করতে থাকে সেনা সদস্যদের। এই প্রশ্ন এবং সুত্রগুলো আশ্রয় নেয় দর্শকদের মস্তিষ্কে। প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে খুঁজকে এবং সুত্রগুলো মেলাতে মেলাতে দর্শকদের সমুখে উপস্থিত হতে থাকে অজানা এক অধ্যায়। পনেরো আগস্ট ভোরবেলা ঘটে যাওয়া হত্যাকাণ্ডের পেছনের ব্যক্তি আর দেশের ভূমিকা; তাদের মুখোশ উম্মোচিত হতে থাকে।

ওদিকে সকলের প্রিয় খোকা কিংবা মিঞা ভাই জানতে পারেন যে উঠানে সদ্য খোঁড়া কবরটি তাঁর, কিন্তু তিনি বিশ্বাস করেন না। তখন মানুষটির ইশারায় অপরাহ্নের আলো বেয়ে উঠানে হাজির হয় শেখ মুজিবের ব্যক্তিগত সহকারী মহিতুল ইসলাম। তার বয়ানে উপস্থাপিত হয় পনেরো আগস্ট ভোরবেলা ধানমণ্ডির বত্রিশ নাম্বার বাড়িতে ঘটে যাওয়া হত্যাকাণ্ডের প্রতিটি ঘটনা। এবার টুঙ্গিপাড়ার খোকা, সকলের প্রিয় মিঞা ভাই, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে বিশ্বাস করতেই হয়। কিন্তু তাঁর বিস্ময় এই ভেবে যে, মানুষ এত অকৃতজ্ঞ হয় কি করে, মানুষ মানুষের বিশ্বাস ভাঙে কি করে। বিদায় বেলায় আবার তাঁর শৈশবে ফিরে যাবার সাধ হয়। এই বাংলাকে একজনমে ভালোবেসে যে তাঁর সাধ মিটলো না, আর সেজন্যে বারবার এই বাংলায় জন্ম নেবার সাধ প্রকাশ করেন তিনি ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here