তারাব পৌরসভা নির্বাচনে দুই কাউন্সিলর প্রার্থী ও সমর্থকদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, কারখানায় হামলা গাড়ী ভাংচুর, আহত-৬৫

0
3
তারাব পৌরসভা নির্বাচনে দুই কাউন্সিলর প্রার্থী ও সমর্থকদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, কারখানায় হামলা গাড়ী ভাংচুর, আহত-৬৫

রূপগঞ্জ প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে তারাব পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। বিকাল সাড়ে ৪ টা থেকে শুরু হওয়া সংঘর্ষ পুলিশের সহযোগীতায় রাত সাড়ে ৭ টায় নিয়ন্ত্রণে আসে। সংঘর্ষে এক কাউন্সিলর প্রার্থী তার প্রতিদ্ধন্ধী কাউন্সিলর প্রার্থীর শ^শুড়ের দুটি টেক্সটাইল কারখানাসহ বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করে। এসময় একটি পিকআপ ভ্যানে আগুন ধরিয়ে দেয়। সংঘর্ষে উভয়পক্ষের প্রায় ৬৫ জন আহত হয়েছে। রাত ৮ টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে তারাব পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের নোয়াপাড়া এলাকায়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বিকাল সাড়ে ৪ টার দিকে রহুল আমিন ফরাজীর সমর্থকরা এলাকায় উটপাখি মার্কার মিছিল নিয়ে বের হয়। অন্যদিকে আরেক কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের সমর্থকরা ডালিম মার্কার মিছিল নিয়ে বের হয়। এসময় দুই প্রার্থীর সমর্থকরা মুখোমুখি হলে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষ রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে পরিণত হয়।

সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ৬৫ জন আহত হয়েছেন। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স, বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া আরো ৬ জনকে মুমূর্ষ অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে নির্বাচনী এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। খবর পেয়ে রাত সাড়ে ৭ টার দিকে নারায়ণগঞ্জ জেলার রিটানিং অফিসার মতিয়ার রহমান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আফিফা খাঁন, নারায়ণগঞ্জ সহকারী পুলিশ সুপার (গ-সার্কেল) মাহীন ফরাজী, উপজেলা নির্বাচন অফিসার মাহাবুবুর রহমান ও রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মাহমুদুল হাসান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here