নাটোরে গভীর রাতে অসহায় কৃষকের তরমুজ কুপিয়ে গেলো দূর্বৃত্তরা

0
1
নাটোরে গভীর রাতে অসহায় কৃষকের তরমুজ কুপিয়ে গেলো দূর্বৃত্তরা

রাশিদুল ইসলাম,নাটোর প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশসহ সারাবিশ্ব যখন করোনাভাইরাস নিয়ে উদ্বিগ্ন, ঘর থেকে মানুষ বের হতে চায় না ঠিক সেই মুহুর্তে এক অসহায় গরীব চাষীর ক্ষেতে থাকা তরমুজ কুপিয়ে রেখে গেছে দূর্বৃত্তরা।

এমন এক দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে রবিবার দিবাগত গভীর রাতের কোন এক সময় নাটোর সদর উপজেলার বড়হরিশপুর ইউনিয়নের ভেদরার বিলে।

ক্ষতিগ্রস্থ ওই তরমুজ চাষী মাছেম আলী জানান, বর্গা নেয়া ৭ বিঘা জমিতে বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে প্রায় তিন লাখ টাকা খরচ করে তরমুজ চাষ করেন।বতর্মানে ক্ষেতের গাছে প্রচুর তরমুজ বাজারজাত করার জন্য প্রস্তুত । কয়েক দিন থেকে ক্ষেতের বাড়ন্ত তরমুজগুলো চুরি হচ্ছিল । তাই তরমুজ রক্ষায় টং বসিয়ে পালা করে দিনরাত পাহারা দিচ্ছিলেন তিনি ও পরিবারের সদস্যরা ।গেল শুক্রবার স্থানীয় দুই শিশু চারটি বড় সাইজের তরমুজ চুরি করার সময় হাতেনাতে ধরা পরলে আভিভাবককে জানানো হয় ।অভিভাবকদের বিচার দেওয়ার অপরাধে দিয়ারভিটা গ্রামের কসাই শহিদ,দোবাজ আক্কুর নেতৃত্বে ৭- থেকে ৮ জন সন্তাসী শনিবার বিকেলে তরমুজ ক্ষেত থেকে ফেরার পথে কৃষক মাছেম আলী ও তাঁর ছেলে আমির হামজাকে বেধড়ক মারপিট করে ।

এ বিষয়ে স্থানীয়ভাবে মিমাংসার কথা ছিল রোববার সন্ধ্যায় কিন্তু কসাই শহীদ সাফ জানিয়ে দেন সালিশে তারা আসবেন না । পরে মাছেম আলী নাটোর সদর থানায় অভিযোগ দাখিল করেন।

প্রতিদিনের ন্যায় রবিবার দিবাগত রাতে টং ঘরে বসে পাহারা দিচ্ছিল তরমুজ চাষী মাছেম এবং তাঁর বড় ছেলে সেলিম । হঠাৎ করে ৮ /১০ জনের একটি দল ধারালো অস্ত্র নিয়ে টং ঘরে হামলা করলে পিতাপুত্র প্রাণ ভয়ে পালিয়ে গিয়ে জীবন রক্ষা করে ।

গতকাল সোমবার সকালে তিনি তরমুজ ক্ষেতে গিয়ে দেখেন তার ক্ষেতে উৎপাদিত বড় সাইজের প্রায় দুইশত তরমুজ দুর্বৃত্ত্বরা দাঁ ,হাসুয়া অথবা কাঁচি দিয়ে কুপিয়ে কেঁটে ফেলেছে। অসংখ্য তরমুজের গাছ উপরে ফেলেছে বিষয়টি তিনি তাৎক্ষনিক স্থাণীয়দের ও কাউন্সিলর এবং ইউপি সদস্যকে জানান।

প্রত্যক্ষদর্শী রতন ও সাব্বির আহম্মেদ জানান, ক্ষেতের উৎপাদিত তরমুজ কেঁটে ফেলার কথা শুনে আমরাসহ স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে এসে দেখি ক্ষেতের মধ্যে বড় সাইজের প্রতিটি তরমুজের মাঝখান দিয়ে কুপিয়ে কেঁটে ফেলা হয়েছে।
চাষী মাছেম আলী কান্না কণ্ঠে বলেন, আমি গরীব মানুষ।এই গ্রামে আমার সাথে কারো কোন শত্রুতা নেই। অনেক কষ্ট করে পরিবার পরিজন নিয়ে দিনরাত শ্রম দিয়ে এই ক্ষেতে তরমুজ চাষ করেছি। এখন আমার সব শেষ হয়ে গেলো। আমি এর বিচার চাই।

ছেলে সেলিম হোসেন নিজের কাঁধের কড়া দাগ দেখিয়ে বলেন,দুই মাস ধরে প্রতিদিন গড়ে ৪শ থেকে ৫শ বালতি পানি ৭ বিঘা জমিতে থাকা তরমুজের চারায় দিয়েছি । নিজের সন্তানের মতো যত্ন করে বড় করেছি । কষ্টকে কষ্ট মনে করিনি এতে আমার ক্ষতির পরিমান প্রায় ৫ লাখ টাকা ।

স্থানীয় ইউপি সদস্য সোহেল রানা বলেন, অজ্ঞাত দুর্বৃত্ত্বরা রাতের আধারে চাষী মাছেম আলীর ক্ষেতের তরমুজ কুপিয়ে রেখে গেছে। তিনি আরো বলেন, কারা এ ঘটনার সাথে জড়িত তাদের খুজে বের করা চেষ্টা চলছে।

এ ব্যাপারে নাটোর সদর থানার অফিসার ইনচার্জ জাঙ্গাঙ্গীর আলম বলেন, এ বিষয়ে থানায় অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here