ফাল্গুন আর ভালোবাসার দিনে জমে উঠে ছিলো কুষ্টিয়ার ফুলের দোকান

0
18

কুষ্টিয়া: সাংস্কৃতিক রাজধানী হিসেবে পরিচিতি এই কুষ্টিয়া।  পহেলা ফাল্গুন ও বিশ্ব ভালোবাসা দিবসকে ঘিরে ব্যবসা অনেক ভালো হয়েছে কুষ্টিয়ার বিভিন্ন ফুলের দোকানদাদের।

রবিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকেই কুষ্টিয়া শহরের বিভিন্ন ফুলের দোকানে নানা রকমের মালিকা আর ফুলের রিং বিক্রি করতে ব্যস্ত ব্যবসায়ীরা।

ঋতু বৈচিত্র্য মাঘ মাস দিয়ে শনিবার শেষ হয় শীতকাল, রোববার পহেলা ফাল্গুন দিয়ে শুরু হয় ঋতুরাজ বসন্তের। বাংলা সনের তারিখ পরিবর্তন আনাই পহেলা ফাল্গুনের দিনে পড়েছে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস।

প্রতি বছর পহেলা ফাল্গুনে ফুলের ব্যবসা জমজমাট হলেও এবার মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে উৎসব পালনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনা আছে। এরপরেও পহেলা ফাল্গুন ও ভালোবাসা দিবসে ফুলের বাণিজ্য জমে উঠে বলে জানান কুষ্টিয়ার ফুল ব্যবসায়ীরা।

দোকান গুলোতে থরে থরে সাজানো হয়েছে নানা রকম ফুলের সাজি। বানানো হচ্ছে মেয়েদের মাথায় পড়ার রিংসহ হাত ও গলার হার। সব মিলিয়ে দেখা গেছে ফুলের ঘাটতি নেই দোকান গুলোতে। ক্রেতার ঘাটতি হবে না বলে আশা করছেন দোকানিরা।

নীলা ফুল ঘরের মালিক সুজন রহমান জানান, এবার পহেলা ফাল্গুন তাদের কাছে একটু ভিন্ন হয়ে হাজির হয়েছে। প্রতিবছর ফুলের ব্যবসা ভালো হলেও এবছর করোনার কারণে এখন পর্যন্ত ক্রেতার সংখ্যা কম। তাই আয়োজন অন্য বারের থেকে একটু কম। তবুও প্রস্তুতিতে ঘাটতি রাখছে না তারা।

ড্রিম ডোর ফুলের দোকান মালিক কিরন খান জানান, এবার পহেলা ফাল্গুন ও ভালোবাসা দিবস এক দিনেই পড়েছে। এসময় ফুলের দাম একটু বেশি থাকে, দুদিন আগে ফুলের দাম বেড়েছে। কয়েকদিন আগে গোলাপ ফুল ৫-১০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।আর এই বিশেষ দিনে একটি গোলাপ ফুল বিক্রি হয়েছে ৪০-৬০ টাকায়। 
 
গত ফাল্গুনের পর করোনা আসার কারণে ব্যবসার অবস্থা অনেক খারাপ। তবে ক্রেতাদের অনেক চাহিদা ছিলো। পাশাপাশি বেশি দামে ফুল কেনার ফলে বিক্রি করতেও একটু বেশি দাম নিতে হয়েছে।

বিনোদন কেন্দ্রগুলো সরব হয়েছিলো তরুণ-তরুণীসহ সব মানুষের পদচারণায়। প্রেমশার বাগিয়ে হৃদয়ে বন্দরে ঘুরে বেড়ায় তারা এপান্তর থেকে তেপান্তর পর্যন্ত। ভালোবাসা দিবসে ভালোবাসার শুভেচ্ছা শুধু প্রমিক প্রেমিকা নয়, প্রযোজ্য বাবা-মা নই – ভাইবোন, বন্ধু সকলের ক্ষেত্রেই। প্রযুক্তি কল্যাণে হাইটেক, ডিজিটালের যুগে মুঠোফোনের ক্ষুদে বার্তা, ই-মেইল, অথবা ফেসবুকে পুঞ্জ পুঞ্জ প্রেমকথার কিশলয় পল্লবিত হয়ে রাত ১২টার পর থেকেই গোলাপের ইশারা বিনিময়, আর মনের গহীনের কথকতার কলি ফোটাবে তারা।

ভালোবাসা নিয়ে কবিতা আর গান সুরে-বেসুরে শোনানো হবে প্রিয়জনকে। ভালোবাসার এই দিনে চকোলেট, পারফিউম, বই ইত্যাদি শৌখিন উপঢৌকন প্রিয়জনরা এক অপরকে উপহার দেয় অনেকে। কেউ কেউ খোঁপায় গুজে দেয় গোলাপ। পহেলা ফাল্গুন ও ভালোবাসা দিবস  ঘিরে নানা কর্মসূচি পালন করে বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান।
ঘুরে বেড়িয়েছে প্রিয়জনকে সাথে নিয়ে। শহর ও শহরতলীরে বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রগুলোেতে।

ভালোবাসার বর্ণ,গন্ধ ও কোন রঙ নেই… নেই কোন আকার। তবুও পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি উচ্চারিত শব্দগুলোর একটি ‘ভালোবাসা’। ফাল্গুনের প্রথম দিন আর ‘ভ্যালেনটাইনস ডে’র একই দিনে আপন করে নেবে তরুণ প্রজন্ম। ফাল্গুন আর ভালোবাসার উচ্ছ্বাসে আজ মুখর হবে নানা বয়সের মানুষ। যেন হৃদয় রাঙানোর মহাদিনে একে অপরকে বলবে সখি ভালোবাসি তোমায়। এই দিনে মন খোলা যায়। কেমন সে দিন,কেমন দিনে তাকে বলা যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here