বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাংচুরে জড়িতদের শাস্তির দাবি রাবি শিক্ষক সমিতির

0
1
বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাংচুরে জড়িতদের শাস্তির দাবি রাবি শিক্ষক সমিতির

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাংচুরে জড়িতদের শাস্তির দাবি এবং ধর্মীয় মৌলবাদীদের অপতৎপরতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষক সমিতি । সোমবার (৭ ডিসেম্বর-২০২০) বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. মো. আশরাফুল ইসলাম খান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আবহমানকাল থেকে বাংলাদেশ নামের এই ভূখণ্ডের মানুষ অসাম্প্রদায়িক চেতনার ধারক-বাহক হিসেবে বিশ্বব্যাপী সুবিদিত। অবিসংবাদিত নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধেও এই ভূখণ্ডের সকল ধর্ম-বর্ণ-জাতিগোষ্ঠীর মানুষ প্রত্যক্ষভাবে অংশগ্রহণ করেছে। তাদের সকলের সম্মিলিত রক্তের বিনিময়ে এই ভূখন্ড স্বাধীন, সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্র হিসেবে পৃথিবীর মানচিত্রে ঠাঁই করে নিয়েছে। বাংলাদেশের সংবিধানসহ এই রাষ্ট্রের কাঠামো ধর্মনিরপেক্ষতা ও সাম্যের মূল চেতনার ভিত্তিতে গড়ে উঠেছে।

আমরা গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভের সঙ্গে লক্ষ করছি যে, একাত্তরে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর দোসর সেই পরাজিত মৌলবাদী গোষ্ঠী বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক চেতনা কখনোই মেনে নিতে পারেনি, কারণ এর আগে তারা ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতাকে সপরিবার নির্মমভাবে হত্যা করেছে। ধর্মের লেবাসে আজো তারা এই রাষ্ট্রের মূল চেতনাকে ধূলিসাৎ করার অপচেষ্টায় লিপ্ত। এরই ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি তারা রাজধানীর ধোলাইরপাড়ে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণের বিরোধিতার নামে শুধু জাতির পিতা ও এই রাষ্ট্রের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি কটাক্ষ ও চরম অবমাননাই করেনি, একাত্তরে যে এলাকায় প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয়েছিল সেই কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভেঙে ফেলার মতো ধৃষ্টতা দেখিয়েছে। এই কাজের জন্য তারা ৫ ডিসেম্বরের মতো এমন একটি দিনকে বেছে নিয়েছে, ১৯৬৯ সালের যে দিনটিতে বঙ্গবন্ধু এই রাষ্ট্রের নামকরণ করেন ‘বাংলাদেশ’।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, বাংলাদেশ সকল ধর্ম, বর্ণ ও ধর্মীয় সম্প্রদায়ের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের দেশ। বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় বীর ও অন্যান্য খ্যাতিমান ব্যক্তিদের শ্রদ্ধা জানাতে ও তাঁদের স্মৃতিকে চিরজাগরুক রাখতে তাঁদের ভাস্কর্য তৈরি হবে। কেননা ভাস্কর্য মানববিদ্যার একটি বিশিষ্ট বিষয়, ললিতকলা তথা শিল্পের অবিচ্ছেদ্য অংশ, যে শিল্পকর্ম মানুষের মধ্যে দেশপ্রেমের অনুভূতির সঞ্চার করে, সুকুমার বৃত্তিকে জাগিয়ে তোলে। বিশ্বের মুসলিম প্রধান অনেক রাষ্ট্রেই খ্যাতিমান ব্যক্তিদের ভাস্কর্য রয়েছে। সেখানে এসব ভাস্কর্য তথা শিল্পকর্ম নিয়ে মুসলিম আলেম বা চিন্তাবিদদের পক্ষ থেকে কোনো বিতর্ক করতে দেখা যায় না। এই দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে সকল ধর্মের মানুষের জীবন বাজি-করা লড়াইয়ের ইতিহাস রয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত এই রাষ্ট্র একটি মানবিক রাষ্ট্র হয়ে উঠবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাংচুরে জড়িতদের শাস্তির দাবি জানিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ধোলাইরপাড়ে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণের বিরোধিতা করা ও কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাংচুরের মাধ্যমে ধর্মীয় মৌলবাদীরা বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে নস্যাতের সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সূচনা করলো বলে আমরা মনে করি। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি তাদের এসব অপতৎপরতার তীব্র নিন্দা জানায় এবং বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুর জড়িত ও এর প্রকাশ্য-নেপথ্যের ইন্ধনদাতাদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here