বাংলাদেশ রেলওয়ের ভূ-সম্পত্তি বিভাগের পাকশীর আওতাধীন পোড়াদহ জংশনের জলাশয়গুলো টেন্ডারের ভিত্তিতে হস্তান্তর

0
5
বাংলাদেশ রেলওয়ের ভূ-সম্পত্তি বিভাগের পাকশীর আওতাধীন পোড়াদহ জংশনের জলাশয়গুলো টেন্ডারের ভিত্তিতে হস্তান্তর

নিজস্ব প্রতিনিধি: বাংলাদেশ রেলওয়ের পাকশীর আওতাধীন পোড়াদহ রেলস্টেশনের অবৈধভাবে দখলকৃত জলাশয়গুলো আজ ০৭ অক্টোবর ২০২০,বুধবার টেন্ডারপ্রাপ্ত ব্যক্তিদ্বয়ের হাতে হস্তান্তর করা হয়েছে।টেন্ডারে লাইসেন্স প্রাপ্ত ব্যক্তি দুজন হলেন – জনাব মো: সুমন শেখ ও জনাব মো: ফারুকুজ্জামান।বিভাগীয় ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বাংলাদেশ রেলওয়ে পাকশী- এর আদেশক্রমে জনাব মো: রাজীবুজ্জামান( ফিল্ড-কানুনগো বাংলাদেশ রেলওয়ে,১৩ নং কাচারী/পোড়াদহ) স্বাক্ষরিত লাইসেন্স টেন্ডারপ্রাপ্ত ব্যক্তিদ্বয়ের হাতে পাঁচ বছরের (১৪২৭-১৪৩১ সন)জন্য হস্তান্তর করা হয়।স্বাক্ষরিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন : এস আই মো: ইব্রাহীম হোসাইন(আহম্মদপুর ক্যাম্প,মিরপুর,কুষ্টিয়া), এস আই মো:সিরাজুল ইসলাম (পোড়াদহ রেলওয়ে থানা,কুষ্টিয়া), মোছা: শারমিন আক্তার নাসরিন(সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান, মিরপুর উপজেলা, কুষ্টিয়া) ও স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ।

উক্ত রেলওয়ের জলাশয়গুলো টেন্ডারের জন্য সয়বাদপত্রে বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয় এবং ওপেন টেন্ডারের ভিত্তিতে সর্বোচ্চ ডাকদাতাদের মধ্য থেকে লটারির মাধ্যমে ডাকদাতা বাছাই করে পাঁচ বছরের জন্য লাইসেন্স প্রদান করা হয়। পোড়াদহ রেলওয়ের অবৈধভাবে দখলে থাকা জলাশয়গুলো যে দুজন টেন্ডারে লাইসেন্স প্রাপ্ত হয়েছেন তাদের পরিচয় ও জলাশয়ের তথ্য নিম্নরুপ প্রদান করা হলো:
মো: সুমন শেখ,পিতা:আমিরুল ইসলাম,গ্রাম: কলাবাড়ি পশ্চিমপাড়া,ডাকঘর: জগতি,উপজেলা:মিরপুর,জেলা: কুষ্টিয়া।টেন্ডারকৃত প্লট নং: ২২৩ ও ২৩৩;জলাশয়ের পরিমাণ:মোট ২.৮৮ একর।জলাশয়ের আওতাভুক্ত ৩ টি পুকুরের জন্য অগ্রীম খাজনা প্রদান সাপেক্ষে (১৪২৭-১৪৩১ সন পর্যন্ত) লাইসেন্স প্রাপ্ত হয়েছেন।পেশাগত জীবনে তিনি ব্যবসায়ী ও রাজনীতিক।ভাল মানুষ হিসেবে তাঁর এলাকাতে যথেষ্ট সুনাম রয়য়েছে।সুমনদের মত উদ্যোক্তারা অনেক মানুষের ককর্মসংস্থান সৃষ্টি করছেন ও সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধিতে অবদান রেখে চলেছেন।

দ্বিতীয় লাইসেন্স প্রাপ্ত ব্যক্তি : মো: ফারুকুজ্জামান (জন),পিতা: আহমদ আলী,গ্রাম:কাটদহ,ডাকঘর :পোড়াদহ,উপজেলা:মিরপুর,জেলা:কুষ্টিয়া।জলাশয়ের টেন্ডারকৃত প্লট নং-২২১,২২৪ ও ২২৫।জলাশয়ের জায়গার পরিমাণ যথাক্রমে ২ একর, ১.২১ একর ও ১.৫৭ একর।তিনি অগ্রীম (১৪২৭-১৪৩১ সন পর্যন্ত) খাজনা প্রদানের মাধ্যমে জলাশয় ভোগের জন্য লাইসেন্স প্রাপ্ত হয়েছেন।তিনি ব্যক্তিজীবনে বড় ব্যবসায়ী,রাজনীতিক ও সমাজ সেবক।সাবেক চেয়ারম্যান হিসেবে এলাকাতে যথেষ্ট সুনাম রয়েছে।তিনিও সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধিতে যথেষ্ট অবদান রেখে চলেছেন।

বাংলাদেশ রেলওয়ের পোড়াদহ জংশনের কর্তৃপক্ষেরর বরাদ দিয়ে জানা যায়, অবৈধভাবে দখলকৃত স্থাপনা ও জলাশয় ওপেন টেন্ডারের ভিত্তিতে অগ্রীম খাজনা আদায়ের মাধ্যমে পাঁচ বছরের জন্য লাইসেন্স প্রদানের মাধ্যমে রেলওয়ের রাজস্ব আদায়ের স্বার্থে ও রাজস্ব বৃদ্ধির লক্ষ্যে টেন্ডারের আওতায় এনে সরকারী রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি করা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here