মধুপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের ওপর হামলার, উদ্ধার করলেন এলাকাবাসী

0
16
মধুপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের ওপর হামলার, উদ্ধার করলেন এলাকাবাসী

টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের মধুপুরে রাতের অন্ধকারে জোরপূর্বক চেয়ারম্যান বাড়ির সংলগ্নে চুনিয়া (ফৈটামারী) সংলগ্ন এলাকায় খিচুড়ি খাওয়ার আয়োজন করেছিল একদল লোক। কিন্তু করোনাকালীন সময়ে পূর্ব হতেই উৎসব-আয়োজনে বিধিনিষেধ প্রদান করেছিলেন বেরীবাইদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জুলহাস উদ্দিন।

সোমবার (২৮ শে ডিসেম্বর) রাতে আয়োজনটি বন্ধের জন্য ফৈটামারী বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলা ক্লাবের সদস্যবৃন্দ ও এলাকাবাসী নিষেধ করেছিলেন। এক পর্যায়ে সংবাদ পেয়ে মধুপুর উপজেলার ৩ নং বেরীবাইদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জুলহাস উদ্দিন সেখানে উপস্থিত হন৷ অতঃপর তিনি তাদেরকে আয়োজনটি বন্ধ করার জন্য অনুরোধ করেন৷ কিন্তু ঐ দুবৃত্তকারীরা তার কথা শুনেননি ; বরং চেয়ারম্যানের প্রতি অতর্কিত আক্রমণ করেন। তারপর চেয়ারম্যানের ডাক-চিৎকারে চেয়ারম্যানকে সেই ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করেছেন এলাকাবাসীরা।

বেরীবাইদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জুলহাস উদ্দিন জানান, “তাদেরকে আয়োজনটি বন্ধের জন্য অনুরোধ করি। করোনার সময়ে সংক্রমণের পাশাপাশি রাতের অন্ধকারে চুর-ডাকাত, লুটপাতের ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু তারা না শুনে আমাকে আক্রমণ করলে এলাকাবাসীরা আমাকে সেখান থেকে উদ্ধার করেন।”

ফৈটামারী গ্রামের আব্দুল কদ্দুছ বলেন, “গুণ্ডাদলের লোকদেরকে আয়োজনটি করার পূর্বেই সেখানে গিয়ে বাধা প্রদান করেছিলাম। করোনার সময়ে খিচুড়ি মেলা না করার জন্য অনুরোধ করেছিলাম। তারপর আমি বাড়িতে এসে রাতের খাবার খাচ্ছিলাম এমন সময় চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে এলাকাবাসীরা তাকে ক্লাবে নিয়ে আসেন।”

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, “চেয়ারম্যানের প্রতি আক্রমণকারীরা হচ্ছেন; মজিবর মাষ্টারের ছেলে মিজানুর রহমান সেলিম, আব্দুল গণির ছেলে সেলিম, হাতেমের ছেলে আহম্মদ, হবিবরের ছেলে মফিকুল, লতিফ, বেরীবাইদের তারা, রূবেল সহ আরও অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জন”

বাবুর্চি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, “আমি আর লতিফ দুজনে রান্না করেছিলাম। তারপর রান্না সম্পূর্ণ করে রেখে দিছিলাম। চেয়ারম্যান সেখানে থাকা পর্যন্ত কোনোরূপ রান্নার পাতিল ঢেলে দেওয়ার ঘটনা ঘটেনি।চেয়ারম্যান এটা ঢেলে দেয়নি।”

উল্লেখ্য যে, চেয়ারম্যান সেখানে উপস্থিত থাকা পর্যন্ত খিচুড়ি ততক্ষণ উনুন/চুলার উপরেই ছিল। কিন্তু তারপর ঐ দুর্বৃত্তকারীরা নিজেরাই ঐ খিচুড়ির পাতিলটি ঢেলে দেয় এমন তথ্য জানিয়েছেন এলাকাবাসীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here