মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যার হুমকি, ৮ বছর পর পাওয়া জমি আবার বেদখল

0
1
মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যার হুমকি, ৮ বছর পর পাওয়া জমি আবার বেদখল

নিজস্ব প্রতিনিধি: প্রায় ৮ বছর আগে ৫ জন ভূমিহীন ও অস্বচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে ১নং খতিয়ানের খাসজমি স্থায়ী বন্দোবস্ত দেয় সরকার। কিন্তু বরাদ্দকৃত জমি প্রভাবশালীদের জবরদখলে থাকায় ভোগদখল নিতে পারেননি জাতির সূর্য সন্তানরা। এ বিষয়টি লিখিতভাবে উপজেলা প্রশাসনকে জানানো হলে গত ১৬ নভেম্বর জবরদখল মুক্ত করে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ওই জমি ফিরিয়ে দেয় উপজেলা প্রশাসন। সেখানে স্থায়ী ঠিকানা বানানোর জন্য ঘরবাড়ি নির্মাণের কাজ শুরু করেন মুক্তিযোদ্ধারা। কিন্তু জমি ফিরে পাওয়ার ১৫ দিন পার না হতেই হত্যার হুমকি আসে তাদের ওপর। অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে ঘরবাড়ি নির্মাণের কাজ বন্ধ করে দিয়ে জমি পুনরায় জবরদখলে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত ব্যক্তিরা হলেন: ওই এলাকার মৃত. আব্দুল কাদের বিশ্বাসের ছেলে রশিদ, আনছার মোল্লার দুই ছেলে বাবুল ও শুকুর, মৃত. সামছুদ্দিন মোল্লার ছেলে আনছার মোল্লা, আব্দুল বারিকের ছেলে আব্দুর গফুর, মৃত. জব্বার মোল্লার ছেলে এসো মোল্লা, ইসলাম মিয়ার ছেলে রাশেদ, মৃত. কেরু বিশ্বাসের ছেলে টিটু, মৃত. গোলাম শেখে ছেলে আকু মেম্বর, মৃত. দুলু মিয়ার ছেলে সেলিম, মৃত. নাদের বিশ্বাসের ছেলে সোহেল ও আছালত বিশ্বাসের ছেলে আছির। জানা গেছে, প্রায় আট বছর পূর্বে কুমারখালীর পান্টি ইউনিয়নের নগরকয়া মৌজায় বীর মুক্তিযোদ্ধা জামাল উদ্দিনের নামে ২৫ শতাংশ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব আলীর নামে ১৮ শতাংশ, বীর মুক্তিযোদ্ধা শরিফুল ইসলামের নামে ২২ শতাংশ এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা লোকমান হোসেনের নামে ২৫ শতাংশ ১ নং খাস খতিয়ানের জমি বরাদ্দ দেয় সরকার।

কিন্তু বরাদ্দকৃত জামালের জমি প্রভাবশালী মতলেব মোল্লা, ইয়াকুবের জমি শ্রী শ্রী তারক চন্দ্র মণ্ডল ও মাস্তান মোলা, শরিফুলের জমি মো. বিপুল এবং লোকমানের জমি আকাম উদ্দিন জোরপূর্বক জবরদখল করে রাখে। বিষয়টি লিখিতভাবে উপজেলা প্রশাসনকে জানানো হলে গত ১৬ নভেম্বর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) এম এ মুহাইমিন আল জিহানের নেতৃত্বে জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহিদ হোসেন জাফর, স্থানীয় আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, পান্টি ভূমি অফিসের কর্মকর্তা ও সার্ভেয়ার এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে জমির মাপ করে লাল পতাকা দিয়ে চিহ্নিত করে মুক্তিযোদ্ধাদের নিকট দখল বুঝিয়ে দেওয়া হয়।এরপর বীর মুক্তিযোদ্ধা কেছমত আলী ও লোকমান হোসেন টিনসেটের ছাবরা ঘর তৈরির কাজ শুরু করেন। ৩০ নভেম্বর সকাল আনুমানিক ১০টার দিকে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা গিয়ে জমির সীমানা প্রাচীর, লাল পতাকা তুলে দেয় এবং নির্মাণাধীন ঘর ভেঙে দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এ বিষয় পাঁচ বীরমুক্তিযোদ্ধা বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) কুমারখালী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এ বিষয়ে বীরমুক্তিযোদ্ধা কেছমত আলী বলেন, আমি একজন ভারতের ট্রেনিং প্রাপ্ত বীরমুক্তিযোদ্ধা। আমি ভূমিহীন, গৃহহীন। থাকি পরের জায়গাতে। সরকারিভাবে আমাকে জমি দিয়েছে ঘর করার জন্য। কিন্তু প্রভাবশালীদের দখলে থাকায় জমিতে ভোগদখলে যেতে পারিনি। আট বছর পরে জমি ফিরে পেয়ে ঘর বানানোর কাজ করছিলাম। কিন্তু প্রভাবশালীরা কাজ বন্ধ করে দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে। আমি এখন কোথায় যাব?

বীর মুক্তিযোদ্ধা লোকমান হোসেন বলেন, স্থানীয় সাবেক মেম্বর আকু জমিতে লাল পতাকা তুলে ফেলা দিয়ে বলেছে জমির আশা ছেড়ে দে, না হলে প্রাণ নিয়ে ফিরতে পারবি না। বীর মুক্তিযোদ্ধা জামাল উদ্দিন বলেন, বাঙালিদের স্থায়ী ঠিকানার জন্য যুদ্ধে গিয়েছিলাম। তাদের স্থায়ী ঠিকানা হয়েছে কিন্তু আমি আজও পথে পথে। তিনি আরো বলেন, জমি বরাদ্দ পাওয়ার আট বছর পরে ফিরে পেলেও ১৫ দিনের মাথায় প্রভাবশালীরা আবারো দখলে নিয়েছে। নাম প্রকাশ না করা শর্তে প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, ওরা ১০/১২ জন এসে পতাকা তুলে ফেলল, ঘর ভেঙে দিল, আর বলল তাড়াতাড়ি এখন থেকে চলে যা, না হলে একটারও প্রাণ নিয়ে ফিরতে দিব না। এ বিষয়ে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ সমিতির সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা এটিএম আবুল মনসুর মজনু বলেন, বর্তমান সরকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভূমিহীন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে খাস জমি বরাদ্দ দিয়েছেন। কিন্তু সেই জমি প্রভাবশালীর দখলে থাকায় ৮ বছরে দখলে যেতে পারেননি মুক্তিযোদ্ধারা। তিনি আরও বলেন, যারা সরকারি জিনিস খাচ্ছে, প্রশাসনের আদেশ মানচ্ছে না, মুক্তিযোদ্ধাদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে ও হত্যার হুমকি দেয় তারা দেশ ও জাতির শত্রু, তারা স্বাধীনতা বিরোধী। তাদের কঠিন শাস্তি হওয়া উচিত। কুমারখালী থানার ওসি মজিবুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান বলেন, আবেদনের প্রেক্ষিতে পান্টি এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের নামে খাস জমি বরাদ্দ দেওয়া হয়। কিন্তু উক্ত জমি প্রভাবশালীদের দখলে থাকায় মুক্তিযোদ্ধারা ভোগ দখলে যেতে পারেনি। এরপর উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতায় পুনরায় সেই জমিগুলো লাল পতাকা দিয়ে চিহ্নিত করে বরাদ্দকৃতদের বুঝিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু সেই দুর্বৃত্ত ও ভূমিদস্যুরা আবারো সেই জমি জবরদখল নিয়েছে। এসব ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে ইতিমধ্যে কুমারখালী থানা পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here