রাবির বন্ধ ক্যাম্পাসেও থেমে নেই মাদক ‘আড্ডা’

0
1
রাবির বন্ধ ক্যাম্পাসেও থেমে নেই মাদক ‘আড্ডা’

খোরশেদ আলম, রাবি প্রতিনিধি: করোনা পরিস্থিতিতে দীর্ঘদিন থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) বন্ধ রয়েছে। তবে ক্যাম্পাসে বন্ধ থাকলেও থেমে নেই মাদকসেবীদের ‘মাদক আড্ডা’। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আনাগোনা কম থাকায় ক্যাম্পাসকে মাদকসেবনের ‘নিরাপদ’ জায়গা হিসেবে বেছে নিয়েছে মাদকসেবীরা। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বিভিন্ন ভবনের আশেপাশে আর ড্রেনগুলোতে প্রায়ই দেখা মিলছে বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্যের বোতলসহ অন্যান্য নিদর্শন। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্যাম্পাসে নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযান চললেও বন্ধ হচ্ছেনা এমন দৃশ্য। ফলে এই অভিযান নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবনের আশেপাশে ও ড্রেনগুলোতে অসংখ্য ফেনসিডিলের বোতল পড়ে আছে। মাদকসেবীরা ফাঁকা ক্যাম্পাসকে মাদকসেবনের নিরাপদ স্থান বানিয়ে নিয়েছে। ক্যাম্পাসে আসছে আর নির্ভয়ে মাদকগ্রহন করে আবার চলে যাচ্ছে তারা। সরেজমিনে দেখা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের জগদীশ চন্দ্র বসু (তৃতীয় বিজ্ঞান) ভবনের পাশে, ক্যাম্পাসের তুত বাগানের পাশে, টুকিটাকি চত্বরে মেহগুনি বাগানে, চারুকলা অনুষদের মুক্তমঞ্চের পাশে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় প্রতিটি ড্রেনের ভেতরে পড়ে আছে ফেনসিডিলের বোতল। এদিকে, বিশ্বাবদ্যালয়ের আবাসিক হল বন্ধ থাকলেও বিভিন্ন দপ্তর খোলা রয়েছে। তাই ক্যাম্পাসে লোকজনের আনাগোনা থাকছে দিনের বেলাতে। তবে বিকেলের পর থেকেই অনেকটা ফাঁকা হয়ে যায় ক্যাম্পাস। শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে ঢুকতে নিলেও তাদের পরিচয়পত্র দেখাতে হয়। তবে ক্যাম্পাস ঘুরে বেশ কিছু বহিরাগতদের উপস্থিতি দেখা গেছে। বিশেষ করে সন্ধ্যার পর ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়কে মোটরসাইকেলে করে বেশ কয়েকজনকে ঘুরতে দেখা গেছে। ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তারা কিভাবে ক্যাম্পাসে ঢুকছে তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, ক্যাম্পাস বন্ধ থাকার কারণে আবাসিক হল বন্ধ থাকলেও বিভিন্ন দপ্তর খোলা, অফিসিয়াল কাজ চলছে। ক্যাম্পাসে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত অনেক লোকজন থাকে কিন্তু বিকেলের পর থেকে তো ক্যাম্পাস প্রায় ফাঁকা থাকে, তখন মাদকসেবীরা সুযোগ নিচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিয়ম অনুযায়ী বিকেল ৩টার পর থেকে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে পরিচয়পত্র দেখাতে হয়, তাহলে বহিরাগতরা কিভাবে প্রবেশ করে। ক্যাম্পাসে বহিরাগত প্রবেশের নিষেধাজ্ঞার আইনের প্রয়োগ ও মাদকদমন অভিযানের সফলতা নিয়ে প্রশ্ন তুলছে শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড.মোহা.ফরিদ উদ্দিন খান বলেন,‘বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় ফাকাঁ ক্যাম্পাসকে কাজে লাগাচ্ছে মাদকসেবীরা। একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে এমন চিত্র সত্যিই আমাদের জন্য লজ্জার। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উচিত নিয়মিত অভিযান করে এদের সনাক্ত করা ও আইনানুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করা। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড.মো.লুৎফর রহমান বলেন ,‘আমি বিষয়টি অভহিত হয়েছি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্যাম্পাসে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলার দায়িত্বে যারা নিয়োজিত আছেন সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের এ ব্যাপারে সর্তক হওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হবে। মাদকসেবীদের চিহ্নিত করে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে ।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here