রূপগঞ্জে সূর্যমুখী চাষে ঝোঁককে কৃষক

0
63
রূপগঞ্জে সূর্যমুখী চাষে ঝোঁককে কৃষক


মুরাদ হাসান, রূপগঞ্জ প্রতিনিধি: সূর্যের আলোতে সূর্যমুখী ফোটে। আর তা দেখে কৃষকের মুখে হাসি ফোটে। বুকে আশার সঞ্চার হয়। বেচে থাকার প্রেরনা পান কৃষক। রূপগঞ্জে কৃষকের মুখের হাঁসি এখন সূর্যমুখী ফুল। এ সকল ফসলের জমিতে ভীড় জমাচ্ছেন সৌন্দর্য্য পিপাসু মানুষগুলো। সূর্যের ঝলমল আলোয় দূর…. ষোড়শী যৌবন, ছটফটে মন আমার, বার বার ছুটে যেতে মন চায় সূর্যমুখীর ঐ হাসির কাছে। কবির ভাষায় এভাবেই কথা গুলো বলেন কলেজ পড়ুয়া মারজীয়া। তিনি বলেন আমি সময় পেলেই মাহনা এলাকার জাকির হোসেনের জমিতে ছুটে যাই। ওখানে গেলে ফুলের মৌ মৌ গন্ধে আমার মনটা ভরে যায়। দেখিয়া ফুলে সৌন্দর্য্য নয় ঝুড়িয়ে যায়নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলা ওমর ফারুক বলেন আমার হাটাব এলাকার পারটেক্স গ্রুপের পিছনে ৩ বিঘা জমিতে প্রতি বছর বিভিন্ন রকম ফসলের চাষ করা হতো। এবার প্রথম সূর্যমুখীর চাষ করা হয়েছে । আমি মন থেকে যে আত্মতৃপ্তি পেয়েছি তা আগে কখনোই পাইনি। প্রতিদিন বিভিন্ন এলাকা থেকে দর্শনার্থীরা সূর্যমুখীর সৌন্দর্য দেখতে আসছে। সবাই এখানে এসে সেলফি তুলছেন এবং তা টুইটার, ইন্টাগ্রাম ও ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে আপলোড করছেন। এটাই আমার বড় পাওয়া। টাকা পয়সা বড় কথা নয়। জীবনে অনেক কামিয়েছি। রূপগঞ্জের কৃষকদের মুখে হাসি ফুটিয়েছে সূর্যমুখী ফুল। তিন মাস আগে লাগানো বীজে এখন মাঠ জুড়ে ফুলের সমারোহ। এখন ঘরে তোলবেন বীজ। আর এই বীজ থেকেই হবে তেল। চলতি মৌসুমে খুব ভালো ফলন হয়েছে। তেল জাতীয় অন্য ফসলের চেয়ে সহজলভ্য ও উৎপাদন খরচ কম হওয়ায় বেশি লাভের আশা করছেন কৃষকরা।

কৃষিবিদ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, রূপগঞ্জের আবহাওয়া সূর্যমূখী চাষের অনুকূলে। বাংলাদেশের অনেক অঞ্চলে এখন বানিজ্যিক ভাবে চাষ হচ্ছে, কিন্তু সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে সূর্যমূখীর তেল। অথচ বাংলাদেশে সূর্যমূখীর সম্ভাবনা উজ্জ্বল। আমরা বিদেশ থেকে রিফাইন্ড সয়াবিন তেল আমদানি করি তাতে আছে স্বাস্থ্যেও জন্য ক্ষতিকর উপাদান থাকে। অথচ আমরা যদি দেশীয়ভাবে সূর্যমূখী চাষকে প্রাধান্য দিয়ে তার বীজকে রিফাইন্ড না করেও শুধু ঘানিতে সূর্যমুখীর বীজ থেকে তেল সংগ্রহ করি তাহলে আমাদের এই ভোজ্যতেলও হতে পারে পুষ্টিসমৃদ্ধ ও স্বাস্থ্যকর খাবার।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এ বছর উপজেলার ৭ টি ইউনিয়ন ও ২ পৌরসভায় প্রায় ৫০ বিঘা জমিতে সূর্যমুখীর চাষ হয়েছে, তন্মধ্যে ৩৫ বিঘা জমিতে সূর্যমুখীর বীজ সরকারি ভাবে দেওয়া হয়েছে । ৩ মাসেই তা পরিপক্ব হয়। প্রতি বিঘা জমিতে ১ কেজি বীজ বপণ করে ৮ /৯ মন ফলন পাওয়া যায়। সরিষা চাষ থেকেও খরচ কম ও ফলন বেশি এবং লাভ জনক। ৪/৫ কেজি বীজ দিয়ে ১ কেজি তেল পাওয়া যায়, যার বাজার মূল্য ৮০০/১০০০ টাকা। উপজেলার মাহনা এলাকার কৃষক মো. জাকির হোসেন বলেন,আমি এক বিঘা জমিতে সূর্যমুখী চাষ করেছি খুব ভালো ফলন হয়েছে আগামীতে ১০ বিঘা জমিতে চাষ করবো, আর সবচেয়ে আনন্দের বিষয় হচ্ছে প্রতিদিন দূর দূরান্ত থেকে মানুষ আসছে আমার বাগান দেখতে। এতেই আমি আনন্দিত ।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ফাতেহা নূর জানান, ভালো ফলন হওয়ায় ধীরে ধীরে আগ্রহী হচ্ছেন কৃষকরা। অধিকাংশ জমিতে এখন পরিপক্ব ফুল। সূর্যমুখী চাষে কৃষককে উদ্বুদ্ধ করতে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বিনামূল্যে ইন্ডিয়ান আর ডি এস হাইব্রিড জাতের সূর্যমুখী বীজ ও সার সহায়তা দেওয়া হয়েছে।
রূপগঞ্জ উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি অফিসার আবদুল বাতেন জানান, সূর্যমূখির তেল মানুষের শরীরের ডায়েবেটিক ও হৃদরোগের প্রতিসেধোকের কাজ করে থাকে।

সূর্যমুখীর কোন কিছুই ফেলনা নয়, বীজ থেকে তেল, এরপর মাছ ও পশুখাদ্যের জন্য খৈল, কাচাঁ গাছ, গো খাদ্য ও গাছ শুকিয়ে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যায়। সূর্যমুখী ফুল দেখতে শুধু রূপময়ই নয়, গুনেও অনন্য। সূর্যমুখীর বীজের তেল স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। অন্যান্য তেলের মধ্যে যেসব ক্ষতিকারক উপাদান ( কোলেস্টেরল) থাকে, সূর্যমুখি তেলে তা নেই। পুষ্টিগুনেও অনন্য। সূর্যমুখীর বীজ খেতে খুব সুস্বাদু। এটা হয়তো আমারা অনেকে জানিই না তেমনটা-ই জানিয়েছেন সৌদি প্রবাসি সেলিম মিয়া। তিনি আরো বলেন, সূর্যমুখীর বীজ সৌদিতে জনপ্রিয় একটি খাবার, সেখানে প্রায় ৯৯% লোকে এটা খায়। বড় বড় সুপার শপ থেকে শুরু করে ছোট ছোট দোকানে পাওয়া যায়। সৌদিতে সূর্যমুখী বীজকে ( আরবি ভাষায় হাব ) বলা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here