শামুকখোল পাখির নিরাপদ আশ্রয়স্থল কুষ্টিয়ার কুমারখালির সাওতা গ্রাম, পাখি হত্যা বন্ধে পাখি প্রেমিদের নানা উদ্যোগ

0
4
শামুকখোল পাখির নিরাপদ আশ্রয়স্থল কুষ্টিয়ার কুমারখালির সাওতা গ্রাম, পাখি হত্যা বন্ধে পাখি প্রেমিদের নানা উদ্যোগ

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালি উপজেলার সাওতা গ্রামে মেলা বসেছে কয়েক হাজার শামুকখোল পাখির। গ্রামের গাছে গাছে এই পাখির বিচরণ। মা পাখিরা ব্যস্ত বাচ্চাদের সামলাতে। অপরদিকে বাবা পাখিরা ব্যস্ত খাবার ও বাসা তৈরিতে। পাখিগুলোর বিচরণে কিছু সমস্যা থাকলেও অন্যরকম আনন্দ পাচ্ছেন এলাকাবাসী। পাখিগুলো দেখতে বেশ বড়। গলা ও পা লম্বা। গায়ের রং সাদার সঙ্গে কালোও হয়। শামুকখোল পাখি বড় আকারের জলচর পাখি। বাংলাদেশে এশীয় শামুকখোল পাখির বিচরণ দেখা যায়।

পদ্মা-গড়াই নদীর এলাকায় শামুকখোল পাখিদের খাদ্য আহরণ করা অনেক সহজ বলে ধারণা করা হচ্ছে। কিন্তু কিছু অসাধু মানুষ রাতের বেলা লোকচক্ষুর আড়ালে শামুকখোল পাখি নিধন করে চলেছে সুযোগ পেলেই। এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেচ্ছাসেবী সংগঠন মানুষ মানুষের জন্য ও কুষ্টিয়া বার্ড ক্লাবের উদ্যোগে এবং কুষ্টিয়া বন বিভাগের সহযোগিতায় সাওতা গ্রামের বেশ কয়েকটি এলাকায় মানুষকে পাখি নিধন প্রতিরোধ সম্পর্কে সচেতন করা হয় এবং বন্য প্রাণী ও পাখি অপরাধ দমন আইন সম্পর্কে মানুষকে অবহিত করা হয় এবং বন বিভাগের পক্ষ থেকে ঐ এলাকায় পাখি শিকার নিষিদ্ধ করে ওই এলাকায় বিলবোর্ড লাগিয়ে দেওয়া হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, যশোর বনাঞ্চলের বন সংরক্ষক ও বাংলাদেশ জীব বৈচিত্র সংরক্ষণ ফেডারেশনের প্রধান উপদেষ্টা ম্যোল্লা রেজাউল করিম, বিভাগীয় বন কর্মকর্তা সালেহ মোহাম্মদ সোয়েব খান, মানুষ মানুষের জন্য কুষ্টিয়ার পরিচালক শাহাবউদ্দিন মিলন, কুষ্টিয়া বার্ড ক্লাবের সভাপতি এস আই সোহেল, মানুষ মানুষের জন্য কুষ্টিয়ার সাংগঠনিক সম্পাদক সাংবাদিক নাব্বির আল নাফিজ, বন কর্মকর্তা জগতি, ভেড়ামারা, (কুষ্টিয়া) সার্কেল মো: আব্দুল হামিদ,যুবলীগ নেতা খোকন,আফজাল মন্ডল,সাইদুল খা ,কোমলসহ বন বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারী ও এলাকার মানুষজন উপস্থিত ছিলেন। জানা যায়, কুমারখালি উপজেলার সাওতা গ্রামের বিভিন্ন গাছপালায় আশ্রয় নিয়েছে এসব অসংখ্য পাখি। গ্রীষ্মকালে পাখিগুলো বিভিন্ন গাছে আশ্রয় নিয়ে থাকে।

এই ছয় মাস পাখিগুলো ডিম দেয়, বাচ্চা ফুটিয়ে আবারও শীত আসার আগেই চলে যায়। কোনো কোনো পাখি আবার থেকেও যায় বলে এলাকাবাসী জানান। তারা বলেন, সকালে পাখির কলকাকলিতে ঘুম ভাঙে আমাদের। সকালের পর পাখিগুলো পদ্মা-গড়াই নদী এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় চলে যায়। খাবার সংগ্রহ করার পর আবার ফিরে আসে। পাখিগুলো যাচ্ছে আসছে। ডালে ডালে কিচিরমিচির শব্দে মুখরিত হয়ে থাকে গ্রাম। গ্রামের বিভিন্ন গাছে আশ্রয় নিয়ে বাসা তৈরি করে থাকে। আশপাশের বিভিন্ন গ্রামের অনেকেই আসছেন পাখিগুলো দেখতে। শীত শেষ হওয়ার পরপরই পাখিগুলো আসতে থাকে।

প্রতি বছরই হাজার হাজার পাখি আসে। কাউকে পাখি শিকার করতে দেয়া হয় না। তবে কিছু মানুষ রাতের বেলায় পাখি হত্যা করছে। তবে এলাকাবাসীর চাপে পাখি হত্যা অনেক কমে গেছে তাই নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসেবে হাজার হাজার পাখির আগমন ঘটে এই গ্রামে। তাই পাখি এই গ্রামকে নিরাপদ স্থান মনে করে। প্রতিবছরই পাখির সংখ্যা বাড়ছে। সেইসঙ্গে বাড়ছে দর্শনার্থীর সংখ্যা। গ্রীষ্মকালের ৬ মাস পাখিগুলো বাচ্চা ফুটানোর পর বাচ্চাগুলো নিয়ে শীতের সময় চলে যায় অজানায়। কোথা থেকে এত পাখি আসে আর কোথায় চলে যায়, তা কেউ বলতে পারে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here