শিবচরে চীফ হুইপের সহযোগিতা,পাল্টে গেলো সুমাইয়ার জীবন

0
1
শিবচরে চীফ হুইপের সহযোগিতা,পাল্টে গেলো সুমাইয়ার জীবন

জিহাদুল ইসলাম সুমন:মাদারীপুরে চীফ হুইপের মহানুভবতায় পাল্টে গেলো মেধাবী শিক্ষার্থী সুমাইয়ার জীবন। জীর্ণ কুঠিরে এখন আলোর ঝিলিক। বসানো হচ্ছে টাইলস। চলতি বছর এসএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ-৫ অর্জনের পরও হতদরিদ্র পিতৃহীন সুমাইয়াসহ তার পরিবারের সদস্যদের চোখ ভরা ছিল জল। জরাজীর্ন ঘরটিই জানান দিচ্ছিল ভালো ফলাফল করেও যখন লেখাপড়াই বন্ধের পথে, তখন দেকদূতের মতো এগিয়ে এলেন জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী এমপি। দায়িত্ব নিলেন তার লেখাপড়াসহ সবকিছুর।

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, শিবচর উপজেলার মাদবরচর ইউনিয়নের সাড়ে এগার রশি লপ্তিকান্দি গ্রামে দেলোয়ার হোসেন শশুরের দেয়া জমিতে বসবাস করছিলেন। সংসার চালাতে ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে ঘুরেঘুরে দর্জির কাজ করতেন। ৭ বছর আগে একটি জীর্ণকুঠির রেখে শ্ব্সকষ্টে মৃত্যুবরণ করেন দেলোয়ার। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম স্বামীকে হারিয়ে চারদিকে অন্ধকার দেখেন স্ত্রী সালেহা বেগম। নিজে ঘরে বসে দর্জি কাজ শুরু করেন। বড় মেয়ে তাসলিমা কেজি স্কুলে চাকুরি করে মার সাথে সাথে সংসারের হাল ধরেন। মেয়ে জামাইদের আর্থিক সহায়তায় কোনমতে চালিয়ে যাচ্ছেন সংসার। অর্থাভাবে ২ মেয়েকে বিয়ে দিতে হয় অল্প বয়সেই। ৬ মেয়ের সর্বকনিষ্ঠ সুমাইয়া ফারহানা। অভাব অনটনের সংসারে সুমাইয়ার লেখাপড়া চালিয়ে নেবার সাহস প্রথমত অবস্থাতে না হলেও লেখাপড়ার প্রতি ওর প্রবল টান থাকায় বোনদের সহায়তায় লেখাপড়া চালিয়ে যায়। ৫ম ও ৮ম শ্রেনীতে জিপিএ-৫সহ টেলেন্টপুলে বৃত্তি পায়। সুমাইয়ার পরিবারের অসহায়ত্বের কথা জেনে বিদ্যালয় শিক্ষকরাও তার প্রতি সার্বিক সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে সুমাইয়া জিপিএ-৫ গোল্ডেন অর্জন করে। মেধাবী শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ অর্জন করেও ভবিষ্যতে লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়া নিয়ে শংকিত ছিল তার পরিবার। ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন বুকে ধারণ করা পিতৃহীন সুমাইয়ার চোখে নেমে আসে হতাশার ছবি। ডাক্তারতো অনেক দূরের কথা ভাল কলেজে ভর্তি হওয়া নিয়েই ছিল সংশয়। সুমাইয়ার এ খবরটি জানার পর স্থানীয় সংসদ সদস্য চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী ওই রাতেই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের সাথে যোগাযোগ করে খবর নেন। পরের দিন সকালেই চীফ হুইপ সুমাইয়ার বাড়িতে মিষ্টি পাঠিয়ে দেন। দুপুরে ফোন দিয়ে সুমাইয়ার তার মা, বড় বোন ও স্কুল শিক্ষকসহ নেতৃবৃন্দদের সাথে কথা বলেন। তিনি সুমাইয়া ও তার পরিবারের কাছে লেখাপড়া চালিয়ে যেতে কি কি প্রতিবন্ধকতা ও প্রয়োজনীয়তা রয়েছে তা জানতে চান। তিনি লেখাপড়া চালিয়ে যেতে পাশে থাকার আশ^াস দেন। তাদের পুরাতন ঘর সংস্কার করে ফ্লোর টাইলস, দরজাসহ সুপেয় পানির ব্যবস্থার তাৎক্ষনিক নির্দেশনা দেন। জেলা পরিষদ থেকে সেলাই মেশিন ও বৃত্তি, ইউপি চেয়ারম্যানের পক্ষ থেকে স্মার্টফোনের ব্যবস্থা করে দেন। সেই জীর্ণকুঠিরের কাজ সম্পন্ন পর শুক্রবার চীফ হুইপ সুমাইয়ার বাড়িতে যান এবং তার অর্থায়নে গড়ে দেয়া বাড়ি ঘুরে দেখেন।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ সামসুল হক বলেন, ‘হতদরিদ্র মেধাবী ছাত্রীর পরিবারের প্রতি এমন মানবিক কর্মকান্ডে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে ব্যাপক প্রাণ চাঞ্চল্যর সৃষ্টি করেছে। চীফ হুইপ মহোদয়ের এমন দৃষ্টান্ত সারাদেশের সকল জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দর অনুসরণ করা উচিৎ।’

চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী এমপি সাংবাদিকদের বলেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধুই বলেছিলেন সোনার বাংলা গড়তে হলে সোনার মানুষ গড়তে হবে। অবকাঠামো উন্নয়নের সাথে সাথে মানব সম্পদ উন্নয়নের মাধ্যমে সোনার মানুষ গড়ে তোলার লক্ষ্যেই আমরা সুমাইয়ার পরিবারের পাশে দাড়িয়েছি।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here