সিলেট অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী চুঙ্গা পুড়া’কে ঘিরে ভাই বন্ধু ও স্বজনদের মধ্যে মেতে উঠেছে খুশির আমেজ

0
2
সিলেট অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী চুঙ্গা পুড়া'কে ঘিরে ভাই বন্ধু ও স্বজনদের মধ্যে মেতে উঠেছে খুশির আমেজ

মোঃ হাফিজুর রহমান তামিম প্রতিনিধি: সিলেট অঞ্চলে শীতকালীন ঐতিহ্যবাহী পিঠা চুঙ্গা পুড়া বা চুঙ্গা পিঠা। তবে এটি গ্রামীণ এলাকায় চুঙ্গা পুড়া নামে বেশ খ্যাত। কার্তিক-অগ্রহায়ণ মাসে ধান কাঁটার পরপরই গ্রামাঞ্চলে শুরু হয় চুঙ্গা পুড়ার বিশেষ আয়োজন। শীতকালের শীতলতম রাতে জমে উঠে তার আমেজ। এই বিশেষ আয়োজনে ভাই বন্ধু এবং আত্মীয় স্বজনদেরকে নিয়ে মিলেমিশে হাসি-খুশির মধ্য দিয়ে এই আয়োজনের উপভোগ। শীতল কালের রাত্রিবেলা শীতল হাওয়ায় আগুনের গরম তাপে হয়ে থাকে এই চুঙ্গা পুড়া উৎসব। যা অনেক আনন্দমুখর রঙবেরঙের আড্ডায় সকলের মনে বয়ে চলে খুশির জোয়ার। মনে হয় যেন ঐতিহ্যবাহী এই পিঠা উৎসব ক্ষনিকের তরে ফিরিয়ে নিয়ে যায় শৈশব-কৈশোরে।

বাঁশের চুঙ্গার ভেতর চাল ভিজিয়ে ও পুড়িয়ে তৈরি করা হয় বলে এর নাম চুঙ্গা পিঠা। এটি সিলেট অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী খাবার। শীত মৌসুমে এ পিঠা তৈরি হয় এ অঞ্চলের ঘরে ঘরে। তবে আগে অনেক বেশি হলেও এখন কিছুটা কম দেখা যায়। চুঙ্গা পিঠার সরঞ্জাম- বাঁশ, চাল ও পাতা। এসব দিয়েই চলে পিঠার কার্যক্রম। যে বাঁশের চুঙ্গায় চাল ভরা হচ্ছে, সে চুঙ্গাগুলো লম্বায় আড়াই থেকে তিন ফুট। পাহাড়ি এ বাঁশের প্রকৃত নাম ডুলুবাঁশ। কিন্তু স্থানীয়দের কাছে এটা চুঙ্গার বাঁশ বলেই বেশি পরিচিত।

আর যে পাতায় মুড়িয়ে চুঙ্গার ভেতর চাল ভরা হয় সে পাতার নাম স্থানীয় ভাষায় খিত্তিপাতা। পাতাটি পাহাড়ি এলাকায় পাওয়া যায়। এর আলাদা একটা সুগন্ধ আছে, যা পিঠার বাড়তি আকর্ষণের একটি অংশ। এ পাতা না পাওয়া গেলে কলাপাতা দিয়েও অনেকে করেন। আর যে চাল দিয়ে তৈরি করা হয় তার নাম বিরইন চাল। পিঠা তৈরির নিয়মটা এমন- প্রথমে খিত্তিপাতায় মুড়িয়ে চুঙ্গার ভেতর চাল ভরা হয়। তারপর বাঁশের ভেতর পানি দিয়ে দুই থেকে তিন ঘণ্টা ভেজানো হয়। ভেজা হলে পাতা দিয়ে বাঁশের খোলা মুখ বন্ধ করে কলাগাছের ওপর বাঁশগুলো সারি দিয়ে বিছিয়ে খড়কুটো দিয়ে আগুন দেওয়া হয়। এক থেকে দেড় ঘণ্টা পোড়ার পর বাঁশ থেকে পিঠা বের করা হয়। এ পিঠা খাওয়া হয় মধু, দুধ, রুই মাছ ইত্যাদি দিয়ে।

কথায় কথায় আমার আম্মুর কাছ থেকে জানতে চাইলে তিনি আমাকে বলেন, মূলত চুঙ্গাপিঠা আদিবাসীদের খাবার। ধীরে ধীরে তাদের কাছ থেকে আমরাও এ পিঠা খাওয়া শুরু করি। এ অঞ্চলে এ পিঠা তৈরি করে মেয়ের শ্বশুরবাড়ি বা আত্মীয়ের বাড়ি দেওয়ার প্রচলন এখনও আছে। পিঠা তৈরি করা হয় সাধারণত সন্ধ্যার পর। আর খাওয়া হয় রাতে সবাই মিলে। তবে আগে এ পিঠা বানানোর প্রচলনটা বেশি ছিল। এখন কিছুটা কম। আজকে আমাদের এই স্পেশাল একটি মূহুর্তের জন্য বড় ভাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ। এবং আমার আম্মার অশেষ পরিশ্রমে হয়েছে এই মজাদার আনন্দ যার জন্য হৃদয় থেকে কৃতজ্ঞতা। আমি ও বড় আপু দুজন মিলে আম্মার সাথে তার কাজের একটি অংশ নেই। তাকে সাহায্য করার পাশাপাশি অনেক কিছুও জানা হয়েছে। অবশেষে চুঙ্গা পুড়া শেষ হওয়ার পর বাঁশ থেকে পিঠা খোলা হয়। সবাই মিলে আনন্দের সাথে সাথে পিঠা খাই।সব মিলিয়ে উৎসব মুখর এই মুহুর্ত গুলো স্মৃতি অমলিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here