সুনামগঞ্জের কাইয়ারগাওঁ গ্রামে বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুর, বাড়ি ঘরে হামলা,লুটপাঠ, নারীসহ ৪জন আহত

0
1
সুনামগঞ্জের কাইয়ারগাওঁ গ্রামে বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুর,বাড়ি ঘরে হামলা,লুটপাঠ,নারীসহ ৪জন আহত


সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি: জাতির পিতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যানার ফেস্টুন রাস্তার পাশে লাগানোর অপরাধে সুনামগঞ্জের কাইয়ারগাওঁ গ্রামে যুব-মহিলালীগের নেত্রীর বাড়িঘরসহ ৫টি নিরীহ পরিবারে লোকজনের বাড়িঘরে হামলা, নারীপূরুষসহ ৪জনকে পিঠিয়ে আহত করাসহ ভাংচুর ও লুটপাঠের ঘটনাটি ঘটেছে। শুক্রবার রাত ৯টায় সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার জাহাঙ্গীর নগর ইউনিয়নের কাইয়ারগাঁও গ্রামের এ হামলার ঘটনাটি ঘটে। এ সময় হামলাকারীরা হুরা মিয়ার বসতঘরে প্রবেশ করে ড্রয়ার ভেঙ্গে ব্যবসার নগদ ১০ লাখ টাকা স্বর্ণালংকারসহ প্রায় ২০ লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কাইয়ারগাওঁ ভূমিখেকো সন্ত্রাসী সৈয়দ মিয়ার ছেলে নজরুল ইসলাম মানিক , মকবুল হোসেন (মুগল),কালা মিয়ার ছেলে মো. শুক্কুর আলী,দানিস মিয়ার ছেলে সামু মিয়া,কাশেম মিয়ার ছেলে ওমর ফারুক গংদের নেতৃত্বে ৪০/৫০জনের একটি চক্র দাড়াঁলো অস্ত্র চাইনিজ কুড়াল,রামদা,লোহার রড়,বল্লম নিয়ে একই গ্রামের নিরীহ হুরা মিয়ার বাড়িতে তার ছেলে মো. ফরিদ মিয়া,আব্দুস শহীদ,অহিদ মিয়া,সাদেক মিয়া,আব্দুস শহীদের স্ত্রী সদর উপজেলা যুব মহিলালীগের সহ সভাপতি লতিফা বেগম, সাংগঠনিক সম্পাদক নুরজাহান বেগম ও যুগ্ম সম্পাদক খোদেজা বেগমসহ ৫টি পরিবারের বাড়িঘরে অর্তকিতে হামলা চালিয়ে নারীপূরুষসহ ৪ জনকে পিঠিয়ে আহত করে । আহতরা হলেন কাইয়ারগাওঁ গ্রামের মৃত চানঁ মিয়ার ছেলে মো.হুরা মিয়া(৭০),মেয়ে সাবিকুন নাহার(২৫),হুরা মিয়ার স্ত্রী জায়েদা খাতুন(৬০)ও ছেলে আব্দুস শহীদ। এদের মধ্যে হুরা মিয়ার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং অন্যান্যদেরকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসাসেবা দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য ২০২০ সালের ২৬ শে অক্টোবর অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলণ কারী সন্ত্রসীা মকবুল ও শুকুর আলীগংরা মিলে পুলিশের সোর্স ভেবে ফরিদ মিয়ার বাড়িতে দাড়াঁলো অস্ত্র নিয়ে তাদের বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে নারীপূরুষসহ ৮জনকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে এবং নগদ টাকা পয়সা স্বর্ণালংকারসহ আসবাবপত্র লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় ফরিদ মিয়া বাদিহয়ে ২৪জনকে আসামী করে সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করার পর সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং পুলিশ একজন আসামীকে গ্রেপ্তার করলে ও বাকি আসামীরা প্রকাশ্যে পুলিশের চোখের সামনে ঘুরে বেড়ালে ও পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার না করায় পূনরায় ঐ চক্রটি আবারো তৃতীয় আড়াই মাস পর আবারও নতুন করে হামলার বাড়িঘর ভাংচুর লুটপাঠের ঘটনা ঘটায়। বর্তমানে ক্ষতিগ্রস্থ পরিাবরের সদস্যরা নিরাপত্তাহীনতায় আছেন বলে জানান তারা।

এ ব্যাপারে সন্ত্রাসী দ্বারা হামলার শিকার সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা যুব মহিলীগের সহসভাপতি লতিফা বেগম ও নুরজাহান বেগম জানান,আজকের ঘটনার মূল কারণটি হলো আমাদের বাড়ির রাস্তার পাশে কেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখমুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখহাসিনার ছবি সম্বলিত ব্যানার ফেস্টুন লাগালাম। এজন্য বাড়িঘরে হামলার পূর্বেই রাস্তার পাশে লাগানো বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ফেস্টুন দাড়ালো অঁস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ছিন্নভিন্ন করেছে। পরে আমাদের বাড়িঘরে এসে ভাংচুর ও লুটপাঠ করে। তিনি প্রধানমস্ত্রী শেখ হাসিনা ও পুলিশ সুপারের নিকট হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে কঠোর শাস্তি প্রদানের পাশাপাশি জানমালের নিরাপত্তা বিধানের দাবী জানান। এ ব্যাপারে সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শহিদুর রহমান জানান খবর পেয়েছি পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here