৪০ বছরে এমন অর্থনৈতিক ধস ভারতে এবারই প্রথম!

0
15
৪০ বছরে এমন অর্থনৈতিক ধস ভারতে এবারই প্রথম!

সাবিহা মঞ্জুর অনিকা, নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনাভাইরাসের প্রভাবে ভয়াবহ অর্থনৈতিক ধস নেমে এসেছে ভারতে। সোমবার প্রকাশিত সরকারি পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে, বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে তথা এপ্রিল-জুনে দেশটির অর্থনীতি নজিরবিহীনভাবে ২৩.৯% সংকুচিত হয়েছে, যা গত চল্লিশ বছরে দেখা যায়নি।
রেটিং সংস্থা ক্রিসিলের আশঙ্কা, স্বাধীনতার পর এই নিয়ে চতুর্থবার মন্দার সম্মুখীন ভারত এবং এই মন্দা হয়তো সবচেয়ে তীব্র হবে। সংস্থাটি মনে করে, পরের প্রান্তিকগুলোতে অর্থনীতি যদি খানিকটা ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করে তা হলেও পুরো অর্থবছরে ভারতীয় অর্থনীতি ৫% সংকুচিত হতে পারে।

গত ২৫ মার্চ থেকে দেশজোড়া লকডাউনের কারণে ব্যবসা-বাণিজ্য, শিল্পোৎপাদন হঠাৎ স্তব্ধ হয়ে যায়। ১ জুন থেকে ধীরে ধীরে লকডাউন ওঠা শুরু হলেও ব্যবসা-বাণিজ্য, কলকারখানায় উৎপাদন, কর্মসংস্থান তৈরিতে তেমন গতি আসেনি।

দেশটিতে অর্থনীতির এতটা গভীর সংকোচন স্বাধীনতার পর আর কখনো হয়নি। এরপর জুলাই-সেপ্টেম্বরেও যদি অর্থনীতির সংকোচন অব্যাহত থাকে, যার সম্ভাবনা খুব বেশি, তা হলে সামনে অবস্থা আরও খারাপ হবে।
কিন্তু অর্থনীতিবিদদের আশঙ্কা, শুধু এপ্রিল থেকে জুন নয়। এর পরেও অর্থনীতির সঙ্কোচন অব্যাহত থাকবে। পরিসংখ্যান বলছে, এই তিন মাসে নতুন লগ্নি ৪৭% কমেছে, যা ইতিহাসে এই প্রথম।

লকডাউন পর্বে একমাত্র খাদ্যপণ্য ও ওষুধ ছাড়া বাকি সবেরই উৎপাদন বন্ধ ছিল। তার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে পরিসংখ্যান মন্ত্রক জানিয়েছে, এপ্রিল-জুনে কৃষি ছাড়া বাকি সব ক্ষেত্রে সঙ্কোচন হয়েছে। গোটা বর্ষার মরসুমে বৃষ্টি ও ভাল ভাবে বীজ বোনার ফলে কৃষি ও সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে বৃদ্ধির হার ৩.৪%।
অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রের ব্যাখ্যা, সরকারি পরিসংখ্যান থেকে স্পষ্ট যে, বর্ষার মৌসুম ভাল না হলে এবং কেন্দ্র ও রাজ্য মিলে খাদ্য সুরক্ষা, জনস্বাস্থ্য, একশো দিনের কাজ, নগদ ভর্তুকিতে টাকা না ঢাললে অর্থনীতির সঙ্কোচন আরও বেশি হত। তিন মাসে সরকারি খরচ বেড়েছে প্রায় ১৬% বেড়েছে। কিন্তু ধাক্কা লেগেছে ভারতের অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি হল দেশের বাজার বা কেনাকাটায়। সেখানে সঙ্কোচন ২৭%।

কিন্তু সরকারি খরচ বাড়িয়ে অর্থনীতি সচল রাখতে হলেও লকডাউনের ধাক্কায় সরকারের রাজস্ব আয়ও কমে গেছে। সরকারি কোষাগারের তথ্য হল, এপ্রিল থেকে জুলাই, চার মাসে রাজকোষ ঘাটতি গোটা বছরের রাজকোষ ঘাটতির লক্ষ্য ছাপিয়ে গেছে।

এপ্রিল থেকে জুনে জিডিপি প্রায় ২৪ শতাংশ কমে যাওয়ার পরেও অর্থনীতিবিদদের অনেকেই মনে করছেন, ছবিটা এর থেকেও খারাপ। কারণ কর্পোরেট সংস্থার পরিসংখ্যান থেকে অসংগঠিত ক্ষেত্রের ছবি পুরোপুরি ধরা পড়বে না। লকডাউনের জেরে অসংগঠিত ক্ষেত্রেই বেশি ধাক্কা লেগেছে। যার ফলে পরিযায়ী শ্রমিক থেকে গরীব মানুষ রুটিরুজি হারিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here